ডা: মশিউরের উপর হামলা করেছিলেন যারা (সিসিটিভি ফুটেজ অনুসারে)

0
IQSHA IT

বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসায় অবহেলায় অভিযোগ চিকিৎসক মশিউর রহমানকে মারধর করেছিলেন রোগীর স্বজনরা। ওই ঘটনার সিসিটিভি ফুটেজে হামলাকারীদের কয়েকজনের নাম ও পরিচয় জানা গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সাগর নামের এক যুবক ঘটনায় চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে রোগীর স্বজনদের ক্ষেপিয়ে তোলেন। সাগর পৌরসভার ঠিকাদারি কাজের দেখভাল করেন। তিনি ভোলার বাসিন্দা। এরপর রোগীর আবদুল্লাহর স্বজন আকাশি শার্ট পরিহিত একজন আচমকা ডাক্তার মশিউরের কলার ধরে টেনে চেয়ার থেকে তুলে মারধর শুরু করেন। ওই যুবকে মৃত আবদুল্লাহর মামা। তাঁরর নাম মিরাজ। তিনি এম বালিয়াতলির লাকুরতলার বাসিন্দা এবং জেলা পরিষদের কর্মচারি সাইফুলের ছোটো ভাই। মিরাজের পেছনে একইসাথে মারধরে অংশ নেয়া খয়েরী টি শার্ট পরিহিত অপর যু্বকের নাম নয়ন। তিনি ৭ নং ঢলুয়া ইউনিয়নে ঢলুয়া এলাকার বাসিন্দা। এছাড়াও হামলা অংশ নেয়া অপর একজন ঢলুয়ার মোশাররফের ছেলে রুবেল। এছাড়াও লাল টি শার্ট কাঁধে ব্যাগ একজনকে হামলায় অংশ নেয়া যুবকের নাম আদনান সাফওয়ান কামরুল। তিনি ৭ নং ঢলুয়ার চরকগাছিয়ার বোর্ড স্কুল এলাকার ভূঁইয়া বাড়ির পাশের বাসিন্দা।

১৯ জুন বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯ টার দিকে খিচুনি ও বমিসহ আব্দুলহ নামের জেলা স্কুলের নবম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রকে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন তার স্বজনরা। রাতে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডঃ মসিউর রহমান রোগীর অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে দ্রুত বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর পরামর্শ দেন। কিন্তু স্বজনরা বিলম্ব করায় বরগুনা হাসপাতালেই ওই ছাত্রের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে চিকিৎসক মসিউর রহমানকে রোগীর স্বজনরা মারধর করেন।
বরগুনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবির হোসেন মাহমুদ বলেন, এ ঘটনার পর শুক্রবার চিকিৎসক মশিউর রহমান বাদি হয়ে বরগুনা থানায় সাইফুল ইসলাম নামের একজনের নামোল্লেখ করে মামলা দায়ের করেছেন। সাগর নামের একজনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদেরও দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!