বরগুনায় স্বতন্ত্রে জয় জয়কার, তিনটিতেই হেরেছে নৌকা

0
IQSHA IT

৫ম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে বরগুনার ৫টি উপজেলায় শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহন সম্পন্য হয়েছে। এর তিনটিতেই নৌকার ভরাডুবি হয়েছে। আ.লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জিতেছেন বিপুল ভোটের ব্যবধানে। একটিতে সামান্য ব্যবধানে জয়লাভ করেছে। অপর একটি উপজেলা বিনা প্রতিদ্বন্দিতার ভোটে নৌকার প্রার্থী জয়লাভ করেছেন।

জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় ঘোষিত তথ্যমতে, বরগুনার পাঁচ উপজেলার নির্বাচনী ফলাফল।

এর মধ্যে বরগুনা সদর উপজেলায় নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ মনিরুল ইসলাম মনির। মনির পেয়েছেন ৩৯ হাজার ৯২২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী অ্যাডভোকেট শাহ্ মোঃ ওয়ালী উল্লাহ অলি পেয়েছেন ২৭ হাজার ৫০ ভোট। অলি বরগুনা বরগুনা সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি। বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের দু’বারের সাবেক সভাপতি। বরগুনা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক।

পক্ষান্তরে মোঃ মনিরুল ইসলাম মনির বরগুনা সদর উপজেলার গৌরিচন্না ইউনিয়নের টানা দু’বারের ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান। এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পদ থেকে অব্যহতি নিয়ে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেন।

বরগুনা সদর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে মোঃ ইমরান হোসেন রাসেল ফরাজি। তিনি তালা প্রতীকে পেয়েছেন ৫১ হাজার ৫১০ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি আরিফ মোল্লা টিউবয়েল প্রতীকে পেয়েছেন ১২ হাজার ৫৫২ ভোট। অপরদিকে সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন শামিমা সুলতানা মুন্নি। তিনি ফুটবল প্রতীকে পেয়েছেন ৪২ হাজার ২৬১ ভোট। তার একমাত্র প্রতিদ্বন্ধি ও বর্তমান সদর উপজেলা পরিষদের সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান শারমিন সুলতানা আসমা পেয়েছেন ২২ হাজার ৭৬৬ ভোট। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে তিনজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন এবং সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে দু’জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।

আমতলী উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীক নিয়ে ৩৫ হাজার ৬২৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আলহাজ্ব গোলাম সরোয়ার ফোরকান। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী সামসুদ্দিন আহমেদ সজু ঘোড়া প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ২৬ হাজার ৩৩৬ ভোট। এ উপজেলায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জি এম দেলোয়ার হোসেন ৩ হাজার ৬১২ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছে।

আমতলী উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে মোঃ মজিবুর রহমান। তিনি টিয়া পাখি প্রতীকে পেয়েছেন ৩১ হাজার ২২৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধিী মোয়াজ্জেম হোসেন খান টিউবয়েলে প্রতীকে ২৭ হাজার ৫২১ ভোট। অপরদিকে সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন তামান্না আপরোজ মনি। তিনি কলস প্রতীকে পেয়েছেন ৩২ হাজার ৩৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী মাকসুদা আকতার জোছনা পেয়েছেন ২৬ হাজার ৬৪৫ ভোট। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে চারজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন এবং সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।

পাথরঘাটা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীক নিয়ে ৩১ হাজার ২৫৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তফা গোলাম কবির। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আলমগীর কবির দাদু নৌকা প্রতিক নিয়ে পেয়েছেন ১১ হাজার ৮০২ ভোট।

পাথরঘাটা উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন হাফিজুর রহমান সোহাগ। তিনি তালা প্রতীকে পেয়েছেন ২১ হাজার ৪৫৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী শওকত হাচার রমিম টিউবয়েল প্রতীকে পেয়েছেন ১৩ হাজার ৮৭২ ভোট। অপরদিকে সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন বর্তমান পাথরঘাটা উপজেলা পরিষদের সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান ফাতিমা পারভীন। তিনি কলস প্রতীকে পেয়েছেন ২০ হাজার ৯৯৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী ইয়াসিন আরা বেগম ফুটবল প্রতীকে পেয়েছেন ১৪ হাজার ২৩২ ভোট। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দুইজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছয়জন এবং সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।

বামনা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান বামনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ সাইতুল ইসলাম লিটু মৃধা নৌকা প্রতীক নিয়ে ১৪ হাজার ৬৯০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ মুর্তাজা আহসান দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১৩ হাজার ৬৫২ ভোট।

বামনা উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে আলতাফ হোসেন হাওলাদার। তিনি চশমা প্রতীকে পেয়েছেন ১২ হাজার ৩৭৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী ইয়াসিন আরাফাত তালা প্রতীকে পেয়েছেন ৭ হাজার ১০২ ভোট। অপরদিকে সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন রুমী খানম। তিনি ফুটবল প্রতীকে পেয়েছেন ১০ হাজার ৯২৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী নাজমুন নাহার নাজু কলস প্রতীকে পেয়েছেন ৮ হাজার ৪৩৯ ভোট। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দুইজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে চারজন এবং সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।

বেতাগী উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মাকসুদুর রহমান ফোরকান নৌকা প্রতীক নিয়ে ২৯ হাজাার ৯৫৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহজাহান কবির দোয়াত কলম প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১ হাজার ৬৩৫ ভোট।

বেতাগী উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছে আমিরুল ইসলাম পিন্টু। তিনি তালা প্রতীকে পেয়েছেন ২৪ হাজার ১৯৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী মাহমুদুল হাসান মহসিন টিউবয়েল প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৫৯ ভোট। অপরদিকে সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন মাহমুদা খানম। তিনি কলস প্রতীকে প্রতীকে পেয়েছেন ২১ হাজার ৬৬২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্ধি নিপু রানী দাশ ফুটবল প্রতীকে পেয়েছেন ৬ হাজার ৩৮৫ ভোট। এ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে দুইজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন এবং সংরক্ষিত নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!